Wednesday, July 28, 2021
Homeছোট ব্যবসাস্বল্প মূলধন, শুরু করুন 'মোমবাতি' তৈরির ব্যবসা

স্বল্প মূলধন, শুরু করুন ‘মোমবাতি’ তৈরির ব্যবসা

যদি কেউ আগে কখনো কোনো ব্যবসা শুরু করেনি এবং খুব কম ইনভেস্টমেন্টের সাথে কোনো ব্যবসা শুরু করার কথা ভাবছে, তাহলে মোমবাতি তৈরির ব্যবসা তার জন্য উপযুক্ত শুরু হতে পারে। মোমবাতি তৈরির ব্যবসা শুরু করতে যেমন স্বল্প মূলধনের প্রয়োজন হয় তেমনি প্রয়োজন হয় কম শ্রমিকের। একেবারে বাড়ি থেকে শুরু করা যাবে এবং প্রথমদিকে পার্ট টাইম হিসেবে কাজ করা যেতে পারে। ধীরে ধীরে ব্যবসা বাড়লে ফুল টাইম করে নেবেন।মোমবাতি বানানো খুবই সহজ এবং এর জন্য বেশি মেশিনের প্রয়োজন হয় না।মোমবাতি যে কোনো ধর্মীয় উপাসনালয়, অনুষ্ঠান, পূজো- পার্বণ, বা আজকাল বাড়িতে,জন্মদিনের পার্টিতে, রেস্টুরেন্টে সুন্দর করে পরিবেশকে সাজানোর জন্য রঙীন এবং সেন্টেড মোমবাতির ব্যবহার করা হয়। তাই এর চাহিদা সারাবছরই থাকে।

পদ্ধতি:

মোমবাতি তৈরি করতে মূলত দুটি উপাদানের প্রয়োজন হয় – মোম এবং পলতা। রঙীন এবং সেন্টেড মোমবাতির জন্য প্রয়োজনীয় মাত্রা অনুসারে রঙ এবং সেন্ট মেশাতে হবে। এছাড়া প্রয়োজনীয় উপকরণ হিসেবে লাগবে মোম গলানোর জন্য পাত্র, ওভেন, মোম ঢালার জন্য পাত্র, হাতুড়ি। মোমবাতি তৈরির জন্য ম্যানুয়েল (হাতে চালানো),  অর্ধ স্বয়ংক্রিয় ও সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় তিন ধরনের মেশিন পাওয়া যায়।

১) ম্যানুয়েল মেশিনের নির্দিষ্ট প্রকোষ্ঠে প্রথমে পলতা ফিট করে দিতে হবে এবং তারপর গলানো মোম তার প্রকোষ্ঠে ঢেলে দিতে হবে। কিছুক্ষণ সময় ঠান্ডা হতে দেওয়ার পর মেশিনের প্রকোষ্ঠ গুলি খুলে তৈরি হওয়া মোমবাতি গুলি প্যাকেজিং করে বাজারে বিক্রি করা যাবে। ম্যানুয়েল মেশিনের সাহায্যে ঘন্টায় ৭০০-১০০০ পিস মোমবাতি তৈরি করা যাবে।

২) অর্ধ স্বয়ংক্রিয় মেশিন চালানো অপেক্ষাকৃত সহজ এবং এর ওয়াটার কুলিং সিস্টেম আছে। এর দ্বারা খুব অল্প সময়ে সহজেই গরম মোম জমাট বেঁধে  ঠান্ডা হয়ে মোমবাতি তৈরি হয়ে যায়। এর পলিতা ফিট করার সিস্টেমটিও উন্নত এবং কম সময়সাপেক্ষ। প্রায় ২০০ পিস মোমবাতি প্রতিটি প্রক্রিয়ায়  তৈরি করা যায়।

৩) সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় মেশিন খুবই উন্নতমানের। উৎকৃষ্ট মানের স্টিল এবং তামার প্রকোষ্ঠ দিয়ে তৈরি। প্লেন, গোল, ত্রিভুজাকৃতি যেমন আকারের যেমন মাপের রঙীন- সাদা, সেন্টেড তৈরি করতে চান সব করা যাবে। প্রতি মিনিটে প্রায় ২০০ পিস মোমবাতি সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় মেশিনের সাহায্যে তৈরি করা সম্ভব।

মেশিনের দাম:

১) উন্নতমানের মানুয়াল মেশিনের দাম প্রায় ২০,০০০ টাকা।
২) অর্ধ স্বয়ংক্রিয় মেশিনের দাম  প্রায় ৪০,০০০ টাকা। 
৩) সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় মেশিনের দাম প্রায় ৭০,০০০ টাকা।

অবশ্যই পড়ুন: নিচের লিঙ্কে ক্লিক করে –

আপনার ব্যবসার জন্য   উপযুক্ত জায়গা নির্বাচন,  লাইসেন্স ও মেশিন কেনার ঠিকানা

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular