Wednesday, July 28, 2021
Homeবড় ব্যবসা'মিনারেল ওয়াটার প্ল্যান্ট' স্থাপনের সম্পূর্ণ গাইড

‘মিনারেল ওয়াটার প্ল্যান্ট’ স্থাপনের সম্পূর্ণ গাইড

আপনি কি মিনারেল ওয়াটার প্ল্যান্ট বসানোর পরিকল্পনা করছেন?  আজকের দিনে পুরো ভারতে প্যাকেজড ড্রিঙ্কিং ওয়াটারের চাহিদা বিপুলভাবে বেড়েছে আর তার জোগান দিয়ে বেড়েছে প্যাকেজড ড্রিঙ্কিং ওয়াটারের ব্যবসা বা মিনারেল ওয়াটার প্ল্যান্ট। মিনারেল ওয়াটার শুধু যে দোকানেই বিক্রি বা সাপ্লাই হবে তা নয় – আপনার এলাকায় বসতবাড়ির পানীয় জল, রেস্টুরেন্টে, অনুষ্ঠানের জন্য ক্যাটারিং এ,  ট্রেনের হকারদের সাপ্লাই দিতে পারি। এই ব্যবসায় মূলধন যেমন বেশি লাগাতে হয় তেমনি লাভ ও খুব ভালো পাওয়া যায়। আসুন জেনে নিই কিভাবে একটি পুরো ওয়াটার প্ল্যান্ট স্হাপন করা যাবে।

প্রয়োজনীয় মেশিন :

ওয়াটার প্ল্যান্টের জন্য প্রয়োজনীয় মেশিন বা যন্ত্রপাতি গুলি হল –
১) ফিটকিরি ট্রিটমেন্ট ট্যাঙ্ক
২) রিভার্স ওসমোসিস প্ল্যান্ট
৩) স্টেনলেস স্টিলের ক্লোরিন ট্যাঙ্ক
৪) স্যান্ড ফিল্টার
৫) সক্রিয় কার্বন ফিল্টার
৬) মাইক্রন ফিল্টার
৭) অতিবেগুনী জীবাণুমুক্ত সিস্টেম
৮) ফিটকিরির জন্য বৈদ্যুতিন ডোজার
৯) ক্লোরিনের জন্য বৈদ্যুতিন ডোজার
১০) ওজোন জেনারেটর
১১)  পরিশ্রুত জল রাখার ট্যাঙ্ক এবং মোটর
১২) স্বয়ংক্রিয় বোতল ধুয়ে জল ভরার মেশিন
১৩) র্র্যাপিং মেশিন
১৪)  মাইক্রো বাই লজিক্যাল ইনস্ট্রুমেন্ট,  জলের শুদ্ধতা পরিমাপ করার জন্য।

পদ্ধতি:

প্রথমে মাটি থেকে  বা অন্য কোনো উৎস থেকে জল নিয়ে এসে ফিটকিরি ট্রিটমেন্ট ট্যাঙ্কে রাখা হয়। এতে জলে থাকা ভারি ধাতু বা অন্যান্য অদ্রবণীয় পদার্থ জলের নিচে থিতিয়ে পড়ে। এইভাবে প্রায় ১ ঘন্টা রাখা হয় এবং তারপর রিভার্স ওসমোসিস প্রক্রিয়ায় জলকে পরিশুদ্ধ করা হয়। এরপর জলটিকে প্রাথমিকভাবে নির্বীজিকরন করা হয় ক্লোরিন ট্যাঙ্কে নিয়ে গিয়ে, ক্লোরিন গ্যাস জলের মধ্যে পাঠানো হয়। এরপর জলটিকে আরো পরিশুদ্ধ করতে স্যান্ড ফিল্টারের মধ্যে পাঠানো হয় যাতে অপ্রয়োজনীয় অপরিশুদ্ধি গুলি বেরিয়ে যায়। এরপর জলটিকে কার্বন ফিল্টারের মধ্যে পাঠিয়ে জলের রং,গন্ধ ও দ্রবীভূত ক্লোরিন দূর করা হয়। এরপর জলটিকে আরো নির্বীজিকরনের জন্য ৫ মাইক্রন,  ১ মাইক্রন ও ০.৪ মাইক্রন ফিল্টারের মধ্যে এবং তারপর অতিবেগুনি জীবাণুমুক্ত সিস্টেমের মধ্যে পাঠানো হয়।  সর্বশেষ পদ্ধতি হল প্যাকিং,  স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে মেশিনের সাহায্যে জল ভরা,  ছিপি লাগানো এবং র্র্যাপিং করে ডজন হিসেবে বক্সে ভরে দিতে হবে।

উপযুক্ত জায়গা বাছাই:

যেরকম বড়ো ধরনের প্ল্যান্ট হবে তার জন্য বেশি জায়গা লাগবে। সেটা প্ল্যান্টের ক্যাপাসিটির উপর নির্ভর করে। ছোটো প্রজেক্টের হলেও ৫০০ স্কোয়ার ফুট বিল্ডিং এর মধ্যে এবং ৫০০ স্কোয়ার ফুট বিল্ডিং এর বাইরে জায়গা চায়।

মেশিনের দাম:

আপনি ৫০০ এম এল, ১ লিটার,  ২ লিটার,  ৫ লিটার জার এবং ২০ লিটার জার হিসেবে জল প্যাকিং করে সাপ্লাই করতে পারি।  মোটামুটি ভাবে সম্পূর্ণ প্ল্যান্ট স্হাপন করতে ৫০-৬০ লাখ টাকা খরচ হয়ে যাবে।  টাকার খরচের পরিমাণ প্ল্যান্টের ক্যাপাসিটির উপর নির্ভর করছে।

অবশ্যই পড়ুন: নিচের লিঙ্কে ক্লিক করে –

আপনার ব্যবসার জন্য   উপযুক্ত জায়গা নির্বাচন,  লাইসেন্স ও মেশিন কেনার ঠিকানা

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular